১০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ইউজার ঝুঁকিতে!!

১০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ইউজার ঝুঁকিতে!!

১০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ইউজার বর্তমানে ঝুঁকিতে রয়েছেন গুগল স্টোর থেকে একটি  ফেক অ্যাপ ইনস্টল করে ।

প্লেস্টোরকে নিরাপদ রাখার জন্য গুগল সবসময় কাজ করে যাচ্ছে। কিন্তু  ডেভেলোপাররা নিত্য নতুন এতো অ্যাপ পাবলিশ করে থাকে যার কারনে মাঝে মাঝেই গুগলের সিকিউরিটিকে ফাঁকি দিয়ে কিছু  ফালতু অ্যাপ গুগল প্লেস্টোরে পাবলিশ হয়ে যায় যেগুলো পরবর্তীতে আমাদের কাল হয়ে দাঁড়ায়।

১০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ইউজার ঝুঁকিতে

এমন একটি  অ্যাপ “Updates for Samsung”। যাদের মোবাইল নিয়ে বেশি নলেজ থাকে না বা যারা নতুন নতুন অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ব্যবহার করা শুরু করেছে , তাদেরকে টার্গেট করে হ্যাকার বা অসাধু ডেভেলোপার এই ফেক অ্যাপটি গুগল প্লেস্টোরে পাবলিশ করে।

ফেক অ্যাপ বলছি কারন যেকোন ব্রান্ডের অ্যান্ডয়েড মোবাইলকে অ্যাপডেট করার জন্য প্রয়োজনীয় সিস্টেম মোবাইলের সেটিংসেই দেওয়া থাকে। তাই এটার জন্য আলাদা অ্যাপ ইনস্টল করার দরকার পড়ে না। কিন্তু ঐযে যারা এতবেশি জানেনা তারা  এই অ্যাপটি ইনস্টল করে এবং এখন ঝুঁকিতে রয়েছে।

অ্যাপটি ইনস্টল করার পর দেখা যায়, অ্যাপটি ইউজারকে একটি ওয়েবসাইটে নিয়ে যায় এবং সেখানে লেখা থাকে, আপনার মোবাইলকে আপডেট করানোর জন্য একটা নির্দিষ্ট অ্যামাউন্ট পেমেন্ট করতে হবে। কিন্তু সত্যিটা হলো আপডেট করার জন্য কোনো পেমেন্ট করতে হয় না।

তাহলে বুঝতে পারছেন কি রকম ঠকানো হয়েছে। মোবাইলকে আপডেট করানোর জন্য পেমেন্ট করতে হবে!!। তবে ঠকানো এখানেই শেষ হয়নি।

যারা অ্যামাউন্ট পেমেন্ট করেছে তাদেরকে কিছু অজানা ফাইল কিছুক্ষন ডাউনলোড করিয়ে ডাউনলোড স্পিডকে এত স্লো করে দেওয়া হয় যাতে ‘টাইম আউট’ চলে আসে। পরে ফাস্ট ডাউনলোড করানোর জন্য ওয়েবসাইটি সাপক্রিপশন ফি আদায় করে।

সবমিলিয়ে ইউজারের  টাকা হ্যাকার বা অ্যাপ ডেভেলোপারটি  আত্মসাৎ করে এবং ইউজার কোনো আপডেট পায় না।

১০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যান্ড্রয়েড ইউজার ঝুঁকিতে

আর সব থেকে দুঃচিন্তার কথা হলো সকল প্রকার পেমেন্ট ওয়েবসাইটি তাদের নিজেদের সিস্টেমে নিয়েছে। তাই যারা পেমেন্ট করেছে তাদের ক্রেডিট কার্ড বা ডেবিট কার্ডের ইনফরমেশন এখন মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে।

তাই সবশেষে একটা কথাই বলব, প্রযুক্তি দিন দিন যত উন্নয়ন হচ্ছে সাথে সাথে এর ঝুঁকিও বাড়ছে। তাই আপনি যেরকম প্রযুক্তিই ব্যবহার করেন না কেন, সেই প্রযুক্তি সম্পর্কে একটু নলেজ রাখুন, একটু সচেতন থাকুন।  তা না হলে একদিন আপনিও এমন ঝুঁকিতে পরতে পারেন।

Image Credit: Google Images