অ্যাপলের ওয়েবসাইট হ্যাক কিন্তু শাস্তি হয়নি হ্যাকারের

অ্যাপলের ওয়েবসাইট হ্যাক কিন্তু শাস্তি হয়নি হ্যাকারের

আমাদের অনেকেরই অ্যাপেলে চাকরি করার ইচ্ছা থাকে। সেই ইচ্ছা থেকেই আমরা আমাদের পড়াশুনা চালিয়ে যাই এবং স্বপ্ন দেখি অ্যাপেলের প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ করার।

কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার এক কিশোরের ধ্যান ধারনা ছিল সম্পূর্ন ভিন্ন। সে শর্টকাটে অ্যাপেলে চাকরি পেতে চেয়েছিল নিজের প্রযুক্তিগত সকল জ্ঞান ব্যবহার করে । কিন্তু  আইন ভঙ্গের অপরাধে তাকে হাজির হতে হয় আদালতে।

সে শুনেছিল, অ্যাপেলের ওয়েবসাইট হ্যাক করে ইউরোপ মহাদেশের একজন অ্যাপেলে চাকরি করার সুযোগ পেয়েছিল। তাই সে ভেবেছিল, অ্যাপেলের ওয়েবসাইট হ্যাক করে সেও অ্যাপেলের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে পারবে এবং অ্যাপল তার হ্যাকিং স্কিলে মুগ্ধ হয়ে তাকে চাকরি দিয়ে দিবে। আর যে ভাবনা সেই কাজ। সে দুইদফায় ২০১৫ ও ২০১৭ সালে অ্যাপলের ওয়েবসাইট হ্যাক করে বিপুল পরিমাণ নথিপত্র ডাউনলোড করে রেখে দেয়।

এসব ঘটনায় তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে এফবিআই ও অস্ট্রেলিয়ার পুলিশ। ধরা পরার পর সে জানায়, হ্যাকিংয়ের সময় মেলবর্নের আরেক কিশোর তাকে সহায়তা করেছিলো।

আদালতে কিশোরের আইনজীবি বলে, হ্যাকিংয়ের কাজ করার সময় সে ১৩ বছরের কিশোর ছিলো। এই ঘটনার পরিণতি সম্পর্কে তার কোনো ধারণা ছিলো না। চাকরি পাওয়ার আশায় সে কাজটি করেছিলো। তাছাড়া এ ঘটনায় অ্যাপলের আর্থিক কোনো ক্ষতি হয়নি এবং গোপন কোনো প্রযুক্তিও ফাঁস হয়নি।

তাই হ্যাকিং করার জন্য সে তেমন শাস্তি পায়নি। তবে আদালতের জজ সেই কিশোরকে অপরাধী সাব্যস্ত না করে একটি বন্ডে সই করায়। সেখানে বলা হয়, আগামী নয় মাস সে ভালো আচরণ না করলে ৫০০ ডলার দণ্ড দিতে হবে।

সূত্রঃ এনগ্যাজেট.কম